মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৫ এপ্রিল ২০২১

পরিচিতি ইলেকট্রমেডিক্যাল

ইলেকট্রমেডিক্যাল টেকনোলজি

সুস্থ স্বাভাবিক ও সমৃদ্ধ জীবন যাপনের জন্য মানুষের  সামাজিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি নিজেদের শরীরের প্রতি যত্নশীল হতে হবে এবং রোগশোক মুক্ত হতে হবে। বর্তমান সময়ে নানা কারণে যে ভাবে মানুষের শারীরিক অসুস্থতা বাড়ছে তাতে করে চিকিৎসা বিজ্ঞান ও চিকিৎসা বিজ্ঞানের আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। একজন মানুষ অসুস্থ হলে মেডিক্যাল টেকনোলজির ইকুইপমেন্টের বিকল্প নেই। যেমন একজন মানুষ অসুস্থ হলে তাকে বিভিন্ন টেস্ট করতে দেয়া হয়। আর এই টেস্টগুলো করতে বিভিন্ন ডিভাইস বা ইকুইপমেন্টের প্রয়োজন হয়। আর এই সকল ইকুইপমেন্ট পরিচালনা, মেন্টেনেন্স ও মেরামত এর সকল কাজ হলো ইলেকট্রোমেডিক্যাল টেকনোলজির। এই টেকনোলজির শিক্ষার্থীরা হিউম্যান এনাটমি ও ফিজিওলজি, বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ক্লিনিক্যাল কেমিষ্ট্রি, মেডিক্যাল ট্রান্সডিউসার ও সেন্সর, অপারেটিং রুম ইকুপমেন্ট ও সেফটি, ব্যায়োমেডিক্যাল সিগন্যাল প্রসেসিং, বায়োমেডিক্যাল ইন্সট্রুমেন্টেশন এ্যান্ড মেজারমেন্ট, ডেন্টাল ইকুইপমেন্ট, এনেসথেসিয়া এ্যান্ড রেসপিরেটোরি ইকুইপমেন্ট, করনারী এ্যান্ড ইনটেন্সিভ কেয়ার ইকুইপমেন্ট, রেজাল্ট ইন মেডিক্যাল ফিল্ড, রোবটিক্স সার্জারি, রেডিওলজি, ফিজিওথেরাপি এ্যান্ড রিহেবিলিটেশন ইকুপমেন্ট, ডায়াগনোষ্টিক এ্যান্ড ল্যাবরেটরী ইকইুপমেন্ট, মেডিক্যাল ফিজিক্স এ্যান্ড নিউক্লিয়ার ইন্সট্রমেন্ট, মাইক্রোকন্ট্রোলার এ্যান্ড এমবেডেট বায়োমেডিক্যাল ইকুইপমেন্টসহ যাবতীয় মেডিক্যাল ইকুপমেন্ট চালানোর জন্য ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স সার্কিট ও মেশিন বিষয়ে জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জন করে। এই টেকনোলজিতে পাস করা  ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারগণ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে চাকুরী করার সুযোগ পায়। এছাড়া মেডিক্যাল ইকুইপমেন্ট ম্যানুফেকচারিং কোম্পানিতে কাজ করা এবং  অপারেশন, মেইনটেন্যান্স ও সার্ভিসিং কাজে উদ্যোক্তা হিসেবে ও মেডিক্যাল ইকুইপমেন্ট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত করার সুয়োগ রয়েছে।

ইলেকট্রমেডিক্যাল টেকনোলজির ল্যাব সমূহঃ

১। ক্লিনিক্যাল কেমেস্ট্রি ল্যাব

২। রেডিওলজি অ্যান্ড ইমেজিইং ল্যাব

 


Share with :

Facebook Facebook